স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত)

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত) প্রশ্নোত্তর ও সাজেশন সম্পর্কে আজকে বিস্তারিত সকল কিছু জানতে পারবেন। সুতরাং সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। অনার্স ১ম বর্ষের যেকোন বিভাগের সাজেশন পেতে জাগোরিকের সাথে থাকুন।

অনার্স প্রথম পর্ব
বিভাগ: স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস
বিষয়: সামরিক শাসন: আইয়ুব খান ও ইয়াহিয়া খানের শাসনামল (১৯৫৮-১৯৭১)
বিষয় কোড: ২১১৫০১

ক-বিভাগঃ অতিসংক্ষিপ্ত প্রশ্নের উত্তর

০১. সামরিক শাসন কী?
উত্তর : দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা রক্ষার কাজে নিয়োজিত সামরিক বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত শাসনব্যবস্থাকে সামরিক শাসন বলে।

০২. সামরিক শাসনের মূলনীতি কী?
উত্তর : সামরিক শাসনের মূলনীতি হলো ‘কর্তার ইচ্ছায় কর্ম’।

০৩. জনগণের মৌলিক অধিকার খর্ব হয় কোন শাসনব্যবস্থায় ?
উত্তর : জনগণের মৌলিক অধিকার খর্ব হয় সামরিক শাসনব্যবস্থায়।

০৪. কোন সরকার ব্যবস্থার কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নেই?
উত্তর : সামরিক সরকার ব্যবস্থার কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নেই ।

০৫. পাকিস্তানে প্রথম কত সালে সামরিক আইন জারি করা হয়?
উত্তর : পাকিস্তানে প্রথম ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর সামরিক আইন জারি করা হয়।

০৬. পাকিস্তানে প্রথম সামরিক আইন কে জারি করেন?
উত্তর : পাকিস্তানে প্রথম সামরিক আইন প্রেসিডেন্ট ইস্কান্দার মির্জা জারি করেন।

০৭. আইয়ুব খান ক্ষমতা দখল করেন কত সালে?
উত্তর : আইয়ুব খান ক্ষমতা দখল করেন ১৯৫৮ সালের ২৭ অক্টোবর।

০৮. পাকিস্তানের দ্বিতীয় সামরিক শাসক কে?
উত্তর : পাকিস্তানের দ্বিতীয় সামরিক শাসক আইয়ুব খান ।

০৯. আইয়ুব খানের সহচর কে ছিলেন?
উত্তর : আইয়ুব খানের সহচর ছিলেন মোনায়েম খান।

১০. স্বঘোষিত ফিল্ড মার্শাল ছিলেন কে?
উত্তর : আইয়ুব খান স্বঘোষিত ফিল্ড-মার্শাল ছিলেন।

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত) *

১১. পোডো (PODO) আইনের মূল উদ্দেশ্য কী?
উত্তর : পোডো (PODO) আইনের মূল উদ্দেশ্য হলো সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়ন্ত্রণ করা।

১২. PODO এর পূর্ণরূপ লেখ ।
উত্তর : PODO এর পূর্ণরূপ হলো Public Officer Disqualification Order.

১৩. আইয়ুব খান পোডো (PODO) আদেশ জারি করেন কত সালে?
উত্তর : আইয়ুব খান PODO আদেশ জারি করেন ১৯৫৯ সালের ৭ অক্টোবর ।

১৪. ‘EBDO’ এর পূর্ণরূপ কী?
উত্তর : EBDO এর পূর্ণরূপ হলো ঊষবপঃরাব ইড়ফরবং উরংয়ঁধষরভরপধঃরড়হ ঙৎফবৎ.

১৫. আইয়ুব খান এবডো (EBDO) আদেশ জারি করেন কত সালে?
উত্তর : আইয়ুব খান এবডো (EBDO) আদেশ জারি করেন ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর ।

১৬. এবডো (EBDO) আইন কেন প্রণীত হয়েছিল?
উত্তর : এবডো (EBDO) আইন রাজনৈতিক নেতাদের দমন ও নির্যাতনের উদ্দেশ্যে প্রণীত হয়েছিল ।

১৭. আইয়ুব খানের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থের নাম কী?
উত্তর : আইয়ুব খানের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থের নাম ‘Friends, Not Masters’.

১৮. পূর্ব পাকিস্তানের কোন পত্রিকা আইয়ুব খানের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে জ্বালাময়ী সংবাদ প্রচার করে?
উত্তর : পূর্ব পাকিস্তানের ‘দৈনিক ইত্তেফাক’ পত্রিকা আইয়ুব খানের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে জ্বালাময়ী সংবাদ প্রচার করে।

১৯. আইয়ুব খানের শাসনামলে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন কে?
উত্তর : আইয়ুব খানের শাসনামলে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া।

২০. আইয়ুব খান পূর্ব পাকিস্তানের কোন পত্রিকার প্রকাশনা নিষিদ্ধ করেন?
উত্তর : আইয়ুব খান পূর্ব পাকিস্তানের দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার প্রকাশনা নিষিদ্ধ করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত) *

২১. ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী কে ছিলেন?
উত্তর : ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ফিরোজ খান নুন ।

২২. আইয়ুব খান প্রবর্তিত শাসনব্যবস্থার নাম লেখ ।
উত্তর : আইয়ুব খান প্রবর্তিত শাসনব্যবস্থার নাম মৌলিক গণতন্ত্র ।

২৩. মৌলিক গণতন্ত্র কী?
উত্তর : আইয়ুব খান কর্তৃক প্রবর্তিত শাসনব্যবস্থাকে মৌলিক গণতন্ত্র বলে ।

২৪. মৌলিক গণতন্ত্র আদেশ কে জারি করেন?
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রের প্রবর্তক ছিলেন আইয়ুব খান।

২৫. মৌলিক গণতন্ত্র আদেশ কবে জারি করা হয়?
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্র আদেশ ১৯৫৯ সালের ২৭ অক্টোবর জারি করা হয়।



২৬. মৌলিক গণতন্ত্রে ভোটাধিকার ছিল কতজনের?
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রে ভোটাধিকার ছিল ৮০,০০০ জনের।

২৭. ‘BD Member’ এর পূর্ণরূপ লেখ।
উত্তর : ‘BD Member’ এর পূর্ণরূপ হলো ”Basic Democrats Member”.

২৮. মৌলিক গণতন্ত্রের প্রথম স্তরের নাম লেখ।
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রের প্রথম স্তরের নাম ইউনিয়ন কাউন্সিল।

২৯. মৌলিক গণতন্ত্রের দ্বিতীয় স্তরের নাম কী?
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রের দ্বিতীয় স্তরের নাম থানা কাউন্সিল।

৩০. মৌলিক গণতন্ত্রের তৃতীয় স্তরের নাম লেখ ।
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রে তৃতীয় স্তরের নাম জেলা কাউন্সিল।

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত) *

৩১. মৌলিক গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তরের নাম লেখ ।
উত্তর : মৌলিক গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তরের নাম বিভাগীয় কাউন্সিল ।

৩২. ১৯৬০ সালের ১১ জানুয়ারির নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তান থেকে কতজন মৌলিক গণতন্ত্রী নির্বাচিত হন?
উত্তর : ১৯৬০ সালের ১১ জানুয়ারির নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তান থেকে ৪০,০০০ জন মৌলিক গণতন্ত্রী নির্বাচিত হন।

৩৩. ১৯৬০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে আইয়ুব খান ভোট পেয়েছিলেন কতটি?
উত্তর : ১৯৬০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে আইয়ূব খান ভোট পেয়েছিলেন ৭৫,২৮২টি।

৩৪. আইয়ুব খান পাকিস্তানের দ্বিতীয় সংবিধান ঘোষণা করেন কত সালে?
উত্তর : আইয়ুব খান পাকিস্তানের দ্বিতীয় সংবিধান। ঘোষণা করেন ১৯৬২ সালের ১ মার্চ।

৩৫. কোন সংবিধানকে আইয়ুবি সংবিধান’ বলা হয়? উত্তর : ১৯৬২ সালের সংবিধানকে ‘আইয়ুবি সংবিধান’।

৩৬. “This is the real Islamic method of election” —উক্তিটি কার?
উত্তর : “This is the real Islamic method of election” —উক্তিটি আইয়ুব খানের।

৩৭. “মৌলিক গণতন্ত্রের পিছনে তার প্রেরণা হচ্ছে ইসলাম।” —উক্তিটি কার?
উত্তর : “মৌলিক গণতন্ত্রের পিছনে তার প্রেরণা হচ্ছে ইসলাম।” —উক্তিটি আইয়ুব খানের।

৩৮. আইয়ুব খান কবে পাকিস্তানের দ্বিতীয় সংবিধান কার্যকর করেন? অথবা, পাকিস্তানের ১৯৬২ সালের সংবিধান কার্যকর হয় কবে?
উত্তর : আইয়ুব খান ১৯৬২ সালের ৮ জুন পাকিস্তানের দ্বিতীয় সংবিধান কার্যকর করেন।

৩৯. ১৯৬২ সালের সংবিধানের ভিত্তি কী?
উত্তর : ১৯৬২ সালের সংবিধানের ভিত্তি মৌলিক গণতন্ত্র ।

৪০. পাকিস্তানের ১৯৬২ সালের সংবিধানে অনুচ্ছেদ ছিল কতটি?
উত্তর : পাকিস্তানের ১৯৬২ সালের সংবিধানে অনুচ্ছেদ পাকিস্তানের ছিল তিনটি।

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (৫ম-অতিসংক্ষিপ্ত) *

৪১. পাকিস্তানের ১৯৬২ সালের সংবিধানে তফসিল ছিল কতটি?
উত্তর : পাকিস্তানের ১৯৬২ সালের সংবিধানে তফসিল ছিল তিনটি ।

৪২. আইয়ুব খান পাকিস্তানকে একটি ইসলামি প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করেন কত সালে?
উত্তর : আইয়ুব খান পাকিস্তানকে একটি ইসলামি প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করেন ১৯৬২ সালের ১ মার্চ।

৪৩. পাকিস্তানকে ইসলামি প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করেন কে?
উত্তর : পাকিস্তানকে ইসলামি প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করেন আইয়ুব খান ।

৪৪. আইয়ুব খান সামরিক আইন প্রত্যাহার করেন কত সালে?
উত্তর : ১৯৬২ সালের ৮ জুন আইয়ুব খান সামরিক আইন প্রত্যাহার করেন ।

৪৫. আইয়ুব খান কত সালে ‘রাজনৈতিক দলবিধি’ আদেশ জারি করেন?
উত্তর : আইয়ুব খান ১৯৬২ সালের ১৫ জুলাই ‘রাজনৈতিক দলবিধি’ আদেশ জারি করেন ।

৪৬. ১৯৬২ সালের সংবিধানে ঢাকাকে কীসের মর্যাদা দেওয়া হয়?
উত্তর : ১৯৬২ সালের সংবিধানে ঢাকাকে দ্বিতীয় রাজধানীর মর্যাদা দেওয়া হয়।

৪৭. ১৯৬২ সালের সংবিধান কবে বাতিল হয়?
উত্তর : ১৯৬২ সালের সংবিধান বাতিল হয় ১৯৬৯ সালের ২৫ মার্চ।

৪৯. কত সালে এনডিএফ (NDF) গঠিত হয়?
উত্তর : ১৯৬২ সালের ৪ অক্টোবর এনডিএফ (NDF) গঠিত হয়।

উক্ত বিষয় সম্পর্কে কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করতে পারেন।
আমাদের সাথে ইউটিউব চ্যানেলে যুক্ত হতে এখানে ক্লিক করুন এবং আমাদের সাথে ফেইজবুক পেইজে যুক্ত হতে এখানে ক্লিক করুন
গুরুত্বপূর্ণ আপডেট ও তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন।

Check Also

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (১০ম-সংক্ষিপ্ত)

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (১০ম-সংক্ষিপ্ত)

স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস (১০ম-সংক্ষিপ্ত) প্রশ্নোত্তর ও সাজেশন সম্পর্কে আজকে বিস্তারিত সকল কিছু জানতে পারবেন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *